fbpx

২৫ হাজার টাকার মধ্যে গ্রাফিক ডিজাইনারদের জন্য কম্পিউটার

গ্রাফিক ডিজাইন শিখতে আগ্রহী নতুন অনেকে আমাদের কাছে কম বাজেটের মধ্যে কম্পিউটারের কনফিগারেশন জনতে চান। তাই আমি চেষ্টা করেছি আমার অভিজ্ঞতা থেকে কিছু পরামর্শ শেয়ার করতে যাতে আপনি নতুন কেনার ক্ষেত্রে এবং পুরানা কম্পিউটার আপগ্রেড করার ক্ষেত্রে কিছু বিষয় শিওর হয়ে নিতে পারেন। এর ফলে অযথা বেশি টাকা ব্যয় করতে হবে না।

নিম্নে কম্পিউটারের কনফিগারেশন, দাম এবং আমার অভিজ্ঞতা থেকে কিছু তথ্য শেয়ার করলাম যাতে আপনি সহজে সিদ্ধান্ত নিতে পারে।

গ্রাফিক ডিজাইনের জন্য বাজেট পিসি কনফিগারেশন

প্রসেসর: AMD Ryzen 3 3200G Processor with Radeon RX Vega 8 Graphics (৯০০০ টাকা)

মাদার বোর্ড: Gigabyte B450M DS3H AM4 AMD Micro ATX Motherboard (৭৫০০ টাকা)

রেম: Gigabyte 8GB DDR4 2666MHz Heatsink Desktop Ram (৩৫০০ টাকা)

স্টোরেজ: HP S700 250GB M.2 Internal SSD (Solid State Drive) (৩৯০০ টাকা)

ক্যাসিং: Maxgreen 2812BK ATX Window Casing পাওয়ার সাপ্লাই সহ (২৫০০ টাকা)

সর্বমোট: ২৬ হাজার ৬০০ টকা

এখন যারা বাজেট ২৫ এর মধ্যে রাখতে চান তারা মাদারবোর্ড নিবেন: Gigabyte GA-A320M-S2H AMD Micro ATX Motherboard (৫৩০০ টকা)

আর যাদের বাজেট আরেকটু বেশি তারা যে কনফিগারেশন নিবেন:

ডেক্সটপ কম্পিউটার কেনার আগে যা যা জানা উচিত


রাইজন ৩ এর পরিবতের্ত AMD Ryzen 5 3400G Processor with Radeon RX Vega 11 Graphics নিবেন। দাম: ১৪,৪০০ টাকা।

রেম ৮ জিবি এর পরিবর্তে ১৬ জিবি নিবেন। হিটসিল সহ রেম নিলে দাম একটু বেশি পড়ে। একাধিক রেম নিলে সেম বাস স্পিড এর নিবেন। বাস স্পিড যত বেশি রেম পারফমেরমেন্স এবং দাম ও বেশি।

উপরে উল্লেখ করা গিগাবাইট SSD এর পরিবর্তে Samsung 970 EVO NVMe M.2 250GB SSD নিবেন। NVMe এর স্পিড রেগুলার এম.২ এর তুলনায় অনেক বেশি। বাজেট আরও বেশি হলে ৫০০ জিবি নিবেন। নরমাল 2.5” সাটা SSD থেকে আমি M.2 SSD বেশি প্রেফার করি। তবে বেশি স্টোরেজের জন্য M.2 এর সাথে নরমাল সাটা SSD নিতে পারেন, কিন্তু HDD কিনে টাকা এবং সময় অপচয় করবেন না।

কেসিং এর ডিফল্ট পাওয়ার সাপ্লাই এর পরিবর্তে আলাদা পাওয়ার সাপ্লাই নিতে পারেন। কেসিং এর দাম কম রাখবে তখন। বর্তমানে দামী কেসিং এর সাথে পাওয়ার সাপ্লাই থাকে না, যাদের বাজেট বেশি তারা চাহিদা অনুযায়ী পওয়ার সাপ্লাই নেয়।

প্রসেসর এর জন্য আলাদা কুলার নিতে পারেন তবে উপরে বলা ২ মডেলের প্রসেসরের সাথে যে কুলিং ফ্যান আছে সেগুলোই যথেষ্ট। জেনে রাখা প্রয়োজন এখন হাই কনফিগারেশন এর দামী প্রসেসরের সাথে কুলিং ফেন দেওয়া হয় না, চাহিদা অনুযায়ী কিনতে হয়।

ডেক্সটপ কম্পিউটার কেনার আগে যা যা জানা উচিত

  • গ্রাফিক ডিজাইনের কাজ শুরু করার জন্য আলাদা গ্রাফিক্স কার্ড খুব জরুরী না, আপনি যখন অনেক টাকা আয় করবেন তখন চাইলে গ্রাফিক্স কার্ড নিতে পারেন যাতে করে একাধিক মনিটর ব্যবহার করতে পারেন
  • ইন্টেল থেকে এ.এম.ডিতে ভালো স্পিড পাওয়া যায়, দাম এবং পারফরমেন্স হিসাবে এ.এম.ডি এর জুড়ি নেই
  • এ.এম.ডি প্রসেসর যে ২ টার কথা বলেছি এগুলোর গ্রাফিক্স কার্ড শেয়ার্ড তাই আপনি যদি রেম ৮ জিবি নেন আপনি ৬ জিবি ব্যবহার করতে পারবেন। ২ জিবি প্রসেসর গ্রাফিক্স হিসাবে শেয়ার করবে
  • আপনি পুরানা ল্যাপটপে সাটা এস.এস.ডি দিয়ে আপগ্রেড করলে ল্যাপটপ বেশি গরম হবে এবং রিস্টার্ট সমস্যা দেখা দিতে পারে
  • অপ্রয়োজনে নরমাল হার্ডডিস্ক কিনবেন না। বাজেট বেশি হলে ৫০০ জিবি এস এস ডি নিবেন। তবে প্রাইমারিটা এম.২ ই বেটার। আমার অভিজ্ঞতা বলে আপনার ২৫০ জিবি এর বেশি প্রয়োজন নেই কারণ এখন কেউ মুভি বা অপ্রয়োজনীয় ফাইল কম্পিউটারে রাখে না। প্রয়োজনে ডাউনলোড করে বা ক্লোউড স্টোরেজে রাখে
  • কিবোর্ড মাউস লজিটেক নিতে পারেন তবে ভুলেও ওয়ারলেস কিবোর্ড মাউস ব্যবহার করবেন না যদি আপনার বাজেট ৫০০০ এর নিচে হয়। কমদামী তার বিহীন কিবোর্ড মাউস স্লো, এগুলো সাধারণ ব্যবহারকারীদের জন্য। ডিজাইনারদের জন্য না
  • মনিটর ডেল এর স্পিকার সহ বর্ডার-লেস মনিটর নিতে পারেন। আলাদা স্পিকার কিনতে হবে না। হুম ইউজের জন্য বেস্ট। বাজেট ১১ হাজার। তবে HP এর ও এমন দামে ভালো মনিটর আছে তবে স্পিকার যুক্ত আছে কিনা শিওর না। মনিটর ২১.৫ ইন্সি এর কম কিনবেন না
  • গেমার না হলে মাদারবোর্ড এর বাজেট ১০ হাজার এর বেশি প্রয়োজন হয় না
  • আপনার যদি বাজেট বেশি হয় এবং গ্রাফিক্স কার্ড কিনেন তাহলে প্রসেসর গ্রাফিক্স ছাড়া নিবেন। প্রসেসরের দাম কিছুটা কম পড়বে এবং আপনার টাকা অপচয় হবে না ।

নোট: উপরে ম্যানশন করা মূল্য ৬ জুলাই ২০২০ তারিখে একটি কম্পিউটার সপ থেকে নেওয়া। আপনি আপনার সুবিধা মত যে কোন দোকান থেকে কিনতে পারেন। সেক্ষেত্রে দাম কম বেশি হতে পারে।

যে কোন মতামত বা সাজেশন দিতে কমেন্ট করুন, নিশ্চয় আপনি কোন বিষয়ে আমার থেকে ভালো জানতে পারেন। আমি আপনার মতামতকে সানন্দে গ্রহণ করবো।

অন্যান্য যে পোস্টগুলো আপনার পড়া প্রয়োজন

  1. গ্রাফিক ডিজাইন কিভাবে শিখবেন? কোথায় শিখবেন?
  2. ফ্রিল্যান্সিং কে পেশা হিসাবে নিতেহলে যেই বিষয় গুলা অবশ্যই জানতে হবে
  3. ফ্রিল্যান্সিং/আউটসোর্সিং ট্রেনিং সেন্টারগুলোতে আপনি যেভাবে ঠকতে পারেন
  4. নতুন গ্রাফিক ডিজাইনার? মাথায় আইডিয়া আসে না? (এই পোস্ট পড়ুন)
  5. আপনি যে কারনে ডিজাইনার হতে পারবেন না (Case Study)

2 thoughts on “২৫ হাজার টাকার মধ্যে গ্রাফিক ডিজাইনারদের জন্য কম্পিউটার”

  1. অত্যন্ত প্রয়োজনীয় একটি আর্টিকেল।
    জাযাকাল্লাহু খাইরান।
    ——-
    বাজেট আরেকটু বেশি দিয়ে যেই কনফিগারেশন বলেছেন, তা দিয়ে কি প্রিমিয়ার প্রো, আফটার ইফেক্ট এর আপডেট ভার্সন গুলার কাজ করা যাবে?

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shopping Cart

কোন প্রশ্ন আছে?